গ্যাস্ট্রিক নিরাময়ের প্রাকৃতিক উপায়

গ্যাস্ট্রিক নিরাময়ের প্রাকৃতিক উপায়

মানুষের পাকস্থলীতে প্রতিনিয়ত হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড(HCL) নিঃসরণ হচ্ছে। খাবার সময় হলে বা কোন মুখরোচক খাবারের ঘ্রাণ বামনে পড়লে এই নিঃসরণের মাত্রা বেড়ে যায়। এছাড়া বিভিন্ন শারীরিক সমস্যা, ওষুধের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হিসেবে, অ্যাসিড নিঃসরণ বেড়ে যায়। এই পরিবর্তিত শারীরিক অবস্থাকেই বলা হয় অ্যাসিডিটি বা গ্যাস্ট্রিক। যার ফলে, বুক জ্বালাপোড়া, পেটে প্রচন্ড ব্যাথা, অকারণে ওজন কমে যাওয়া, শুষ্ক কাশি, হজমে সমস্যা,মাথাব্যথা,বমিবমিভাব এমনকি রক্তবমিও হতে পারে। গ্যাস্ট্রিক নিরাময়ের প্রাকৃতিক উপায়ঃ
১) প্রচুর জল পান করুন: গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় জল পান করার কোনো বিকল্প নেই। সারা দিনে প্রচুর পরিমাণে পানি খেলে পেটে এসিড হয়না এবং হজম শক্তি বাড়ে। তাই প্রতিদিন অন্তত ৭ থেকে ৮ গ্লাস ্জল খাওয়ার অভ্যাস করুন। তাহলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা কমে যাবে কিছুদিনের মধ্যেই। ২) প্রাকৃতিক চা: বিভিন্ন রকম প্রাকৃতিক চা যেমন সবুজ চা, পুদিনা চা, তুলসী চা এগুলো হজম ক্ষমতা বাড়ায় এবং গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা সমাধান করে। ৩) লেবুর ব্যবহার: একটি মাঝারী আকৃতির লেবু চিপে রস বের করে নিন। লেবুর রসের সাথে আধা টেবিল চামচ বেকিং সোডা ও এককাপ পানি মিশিয়ে নিন। বেকিং সোডা ভালো করে মিশে যাওয়া পর্যন্ত নাড়তে থাকুন। এবার মিশ্রণটি খেয়ে নিন। নিয়মিত খেলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় আরাম পাওয়া যায়। গ্যাস্ট্রিকের ব্যথায় সাথে সাথে আরাম পেতে চাইলে হালকা গরম পানিতে লেবুর রস মিশিয়ে খান। কিছুক্ষণের মধ্যেই ব্যথা কমে যাবে। ৪) টক দইঃ টক দই হজমে সাহয্য করে এবং গ্যাস নির্মূল করে। ৫) আদা: পেটে গ্যাসের সমস্যার থেকে মুক্তি পাওয়ার সবচেয়ে সহজ ঘরোয়া সমাধান হলো আদা খাওয়া। প্রতিবেলা খাবার খাওয়ার পর একটুকরা আদা মুখে নিয়ে চিবিয়ে রস খান। তাহলে পেটে গ্যাস জমবেনা এবং গ্যাস্ট্রিকের ব্যথার থেকে মুক্তি মিলবে। যারা আদা সরাসরি খেতে পারেন না তাঁরা রান্নায় বেশি করে আদা ব্যবহার করুন। আবার স্লাইস করে করে কেটে চায়ের মধ্যে দিয়ে আদা চা বানিয়ে খেতে পারেন। ৬) রসুন: গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর করার জন্য রসুন খুবই কার্যকরী উপাদান। রসুন, কালো মরিচের বীজ, ধনেবীজ এবং জিরা বীজ একসাথে মিশ্রিত করে কয়েক মিনিট ফুটিয়ে সিদ্ধ করতে হবে , সিদ্ধ করার পর এই মিশ্রন থেকে যে নির্যাস বের হবে সেটা ছেঁকে আলাদা করতে হবে। তারপর সাধারণ তাপমাত্রায় এই নির্যাস ঠান্ডা করে দৈনিক দুইবার পান করতে হবে।
৭) ডাবের জলঃ ডাবের জল খেলে হজম ক্ষমতা বাড়ে এবং সবখাবার সহজেই হজম হয়ে যায়। এছাড়াও গ্যাসের সমস্যা থেকেও মুক্তি পাওয়া যায় নিয়মিত ডাবের জল খেলে। তাই সম্ভব হলে প্রতিদিন ডাবের ্জল খাওয়ার অভ্যাস করুন।তাহলে গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে। ৮) আলুর রস: আলু বেটেকিং বা ব্লেন্ডারে ব্লেন্ড করে চিপে রস বের করে নিন। এবার এই রস প্রতিবার খাওয়ার আগে খেয়ে নিন। এভাবে তিনবেলা খাওয়ার আগে আলুর রস খেলে কয়েক দিনের মধ্যেই গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা থেকে মুক্তি মিলবে। ৯) যাদের গ্যাস আছে তারা কয়েকটা লবঙ্গ, অথবা পুদিনা পাতাখান, দেখবেন ওষুধের মত কাজ করবে। ১০) জিরা আমরা মসলা হিসেবে ব্যবহার করি। এটি গ্যাস উপশমে দারুন কার্যকরী। জিরা প্রথমে তাওয়ায় সেঁকে নিয়ে গুঁড়া করুন। এবার ভালো করে ছেঁকে নিন। পাত্রে সংরক্ষণ করুন। ভাত খাওয়ার আধাঘন্টা আগে ১ গ্লাস জলেতে ১চামচ পরিমাণ মিশিয়ে পান করুন। দেখবেন গ্যাস তাড়াতাড়ি উপশম হবে। ১১) গ্যাসের কারণে বুকে জ্বালা হয়। যাদের বুকে জ্বালা করে তারা গুড় খাবেন। তবে মনে রাখবেন আপনার ডায়াবেটিস থাকলে গুড় থেকে দূরে থাকুন। ১২) তেঁতুলপাতা: তেঁতুল পাতা মিহি করে বেটে নিন। এবার তেঁতুলপাতা বাটা একগ্লাস দুধের সাথে মিশিয়ে প্রতিদিন পান করুন। গ্যাস্ট্রিকের সমস্যা দূর হয়ে যাবে সহজেই। ১৩) পেটেরে যেকোন সমস্যার জন্য ৫-৬টি বাসক পাতা চিবিয়ে খান। চিবিয়ে খেতে অনেক তেতো লাগতে পারে।এজন্য আপনি বাসক পাতা রোদে শুকিয়ে বড়ি বানিয়ে রেখেও খেতে পারেন। ১৪) খাওয়ার পর বাটার মিল্কের সাথে গো্ল মরিচ মিশিয়ে খেলে এ্যাসিডিটি নির্মূল হয়। ১৫) শশা খেলেও আপনার পেটে গ্যাস থাকবেনা এবং পেটের ব্যাথা- জ্বালাপোড়া সহজেই চলে যাবে! ১৬) লবঙ্গঃ যদি আপনি গ্যাস্ট্রিকের সমস্যায় জর্জরিত হয়ে থাকেন, তবে লং হতে পারে আপনার সঠিক পথ্য। দুইটি লবঙ্গ মুখে নিয়ে চিবাতে থাকুন, রসটা খাবেন। দেখবেন এসিডিটি দূর হয়ে গেছে। ১৭) মাঠা দুধ এবং মাখন দিয়ে তৈরী মাঠা একসময় আমাদের দেশে খুবই জনপ্রিয় ছিল। এসিডিটি দূর করতে টনিকের মতো কাজ করে যদি এর সাথে সামান্য গোলমরিচ গুঁড়া যোগ করেন। ১৮) গ্যাস্ট্রিক সাড়াতে জার্মানি লতার রস একচামচ এবং হেল কলমিলতার রস একচামুচ একত্রে মিশিয়ে খেতে হবে রোজ সকালে খালিপেটে অন্তত একমাস। ১৯) জল মিশ্রিত ইসবগুলের ভূষিসকালে ঘুমথেকে উঠেও রাতে ঘুমাতে যাওয়ার আগে খেলে উপকার পাওয়া যাবে।

Please follow and like us:
0
20
Pin Share20

Leave a reply

Minimum length: 20 characters ::
RSS
Follow by Email
YOUTUBE
PINTEREST
LINKEDIN