করোনা বিজয়ী মমতাময়ী মায়ের কোলে দুই জমজ শিশু সন্তান

করোনা বিজয়ী মমতাময়ী মায়ের কোলে দুই জমজ শিশু সন্তান

জগন্নাথপুর উপজেলা প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার সৈয়দপুর গ্রামের করোনা বিজয়ী মায়ের কোলে দুই জমজ শিশু।জানাযায় সিলেটের একটি বেসরকারী হাসপাতাল থেকে সুস্থ্ হয়ে নিজ গ্রামে উপজেলার সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামে ফিরেন জমজ শিশুর মা সৈয়দা রিনা বেগম। তিনি ওই গ্রামের নির্মাণ শ্রমিক সুফি মিয়ার স্ত্রী।পরিবারের লোকজন ও এলাকাবাসীর সূত্র জানায়, উপজেলার সৈয়দপুর শাহারপাড়া ইউনিয়নের সৈয়দপুর গ্রামের নির্মাণশ্রমিক সুফি মিয়ার স্ত্রী সৈয়দা রিনা বেগমের গর্ভে গত ১৫ আগস্ট সিলেটের একটি বেসরকারি হাসপাতালে অপারেশনের মাধ্যমে দুই জমজ পুত্র সন্তানের জন্ম হয়। একসঙ্গে দুই সন্তানের জন্মে পরিবারে আনন্দ উচ্ছ্বাস দেখা দেয়। এরমধ্যে রীনা বেগমের করোনা উপসর্গ দেখা দেয়। গত ২৪ অক্টোবর নমুনা পরীক্ষায় সৈয়দা রিনা বেগম করোনা শনাক্ত হন। প্রথমে নিজ বাড়িতে আইসোলেশনে রেখে তার চিকিৎসা দেওয়া হলেও শারিরীক অবস্থা অবনতি হলে ২৫ আগষ্ট রাতে তাঁকে সিলেটের একটি বেসরকারি হাসপাতালের আইসিইউতে ভর্তি করে চিকিৎসা দেওয়া হয়। টানা ১৫ দিন চিকিৎসা শেষে আজ রাতে নিজ বাড়ি ফেরেই দুই শিশুকে কোলে তুলে নেন করোনা বিজয়ী এই মমতাময়ী মা।নাড়ি ছেড়া দুই শিশুকে কোলে পেয়ে আনন্দজড়িত কণ্ঠে মা সৈয়দা রিনা বেগম এক তাৎক্ষনিক প্রতিক্রিয়ায় জানান, মৃত্যুর সঙ্গে যখন লড়ছিলাম, তখনও দুই শিশুর জন্য বুক ফেটে যাচ্ছিল। ১৫ দিন পর আজ সন্তানদের বুকের দুধ খাওয়াতে পেরে খুবই খুশি আর আনন্দ লাগছে।
তিনি আরো বলেন, আমার অসুস্থতাকালিন সময় আমার বড় দুইবোন জমজ দুই শিশুকে তাদের বুকের দুধ পান করাইছেন। তিনি সবার কাছে তাঁর পরিবারের জন্য দোয়া চান।সৈয়দা রিনা বেগমের স্বামী সুফি মিয়া জানান, আমার স্ত্রী যখন গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন। ওই সময় তাঁর চিকিৎসার ব্যয়ভার নিয়ে দুশ্চিন্তায় ভেঙে পড়েছিলাম। তখন স্ত্রীর চিকিৎসায় আর্থিক সহযোগিতা আমাদের পাশে জগন্নাথপুর উপজেলার অনেক বিত্তবানরা দাড়িয়েছিলেন। এজন্য আমরা তাদের প্রতি কৃতজ্ঞ।জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্হ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মধু সুধন জানান, শুনেছি ওই নারী সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন।

Please follow and like us:
0
20
Pin Share20

Leave a reply

Minimum length: 20 characters ::
RSS
Follow by Email
YOUTUBE
PINTEREST
LINKEDIN