Search
Friday 5 June 2020
  • :
  • :

সাতক্ষীরার দুধ ও চিংড়ি সংরক্ষন করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী

হেলাল উদ্দীন সাতক্ষীরা জেলা প্রতিনিধিঃ করোনা পরিস্থিতি জানতে এবং প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দিতে আজ রোববার প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা খুলনা এবং বরিশাল বিভাগের জেলা প্রশাসকদের সাথে ভিডিও কনফারেন্সে যুক্ত হন। ভিডিও কনফারেন্সে সাতক্ষীরার দুধ ও চিংড়ি সংরক্ষন করতে বললেন প্রধানমন্ত্রী।সাতক্ষীরা জেলার জেলা প্রশাসক এস এম মোস্তফা কামাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সে প্রথমে যুক্ত হন। তিনি সাতক্ষীরা জেলাতে করোনা প্রতিরোধে সার্বিক চিত্র তুলে ধরেন। তিনি বলেন ‘সাতক্ষীরা জেলাতে প্রতিদিন বিপুল পরিমাণে দুধ অবিক্রিত থেকে যাচ্ছে। মিষ্টির দোকান গুলো বন্ধ থাকার কারনে দুধ নষ্ট হচ্ছে। এগুলো স্থানীয় মিষ্টির দোকানে সরবরাহের ব্যাপারে ইতোমধ্যে সিদ্ধান্ত গ্রহন করা হয়েছে। নিরাপদ দুরাত্ব বজায় রেখে মিষ্টি ব্যবসায়ীরা তা বিক্রি করবেন। সাতক্ষীরা চিংড়ি উৎপাদনকারী একটি জেলা। সামনে চিংড়ি মৌসুম। চিংড়ি রপ্তানি করতে না পারলে চিংড়ি খাতের সাথে জড়িতরা ক্ষতিগ্রস্ত হবেন সেটিও তুলে ধরেন জেলা প্রশাসক।জেলা প্রশাসক এম এস মোস্তফা কামাল তার বক্তব্যে আরো বলেন, করোনা প্রতিরোধ এবং সামাজিক দুরাত্ব বজায় রাখতে সাতক্ষীরার সুলতানপুর বড় বাজারের কাঁচা বাজার পাশ্ববর্তী একটি বড় মাঠে স্থানন্তর করা হয়েছে। ঘরবন্দি মানুষের বিনোদন দিতে আজ থেকে জেলা প্রশাসকের ফেসবুক পেজে কবিতা আবৃত্তির উদ্যোগ নেয়া হয়েছে’।সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসকের বক্তব্য শুনার পর প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সাবেক এমপি মুনসুর আহম্মেদকে ডেকে নেন এবং তাকে বক্তব্য রাখার জন্য বলেন। এ সময় মুনসুর আহম্মেদ বলেন ‘ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি সাতক্ষীরার জন্য অনেক কিছু দিয়েছে। না চাইতেই দিয়েছেন। দেশের সর্ব দক্ষিণের জেলা সাতক্ষীরা। এখানে আইলা,সিডর, বুলবুলের মতো প্রাকৃতিক দুর্যোগ সারা বছর লেগেই থাকে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি যদি করোনা দুর্যোগে সাতক্ষীরা জেলাতে বরাদ্দ একটু বাড়িয়ে দেন তাহলে অসহায় গরীব মানুষগুলো অনেক উপকৃত হবে’।সাতক্ষীরা জেলা প্রশাসক এবং জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতির বক্তব্য শুনার পর প্রধানমন্ত্রী বলেন ‘সাতক্ষীরায় উৎপাদিত দুধ যেন কোন ভাবেই নষ্ট না হয় সেদিকে খেয়াল রাখতে হবে। উৎপাদিত মাছও যাতে নষ্ট না হয় সে ব্যাপারেও আমাদের পদক্ষেপ নিতে হবে। প্রয়োজনে দুধ প্রক্রিয়াজতের মাধ্যমে গুড়া দুধ তৈরী করা যেতে পারে। আর চিংড়ি মাছ হেমাহিত করার ব্যবস্থা নিতে হবে। প্রতিটি ইউনিয়নে বরাদ্দ সমান ভাবে পৌছানোর ব্যবস্থা করা হয়েছে। ইনশাল্লাহ কোন মানুষ না খেয়ে থাকবে না’।ভিডিও কনফারেন্সে আরো উপস্থিত ছিলন সাতক্ষীরা সদর আসনের এমপি বীর মুক্তিযোদ্ধা মীর মোস্তাক আহমেদ রবি, সাতক্ষীরা-১ আসনের এমপি এড.মুস্তফা লুৎফুল্লাহ, সাতক্ষীরা পুলিশ সুপার মোস্তাফিজুর রহমান, সাতক্ষীরা জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব মো: নজরুল ইসলাম, সিভিল সার্জন ডা: হুসাইন শাফায়াত প্রমুখ।
★ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী সকলের উদ্দেশ্যে দিকনির্দেশনা প্রদান করেন ★
১. বর্জ্য ব্যবস্থাপনার জন্য বিশেষ উদ্যোগ গ্রহণ করতে হবে।
২. সবাইকে মাস্ক ব্যবহার করতে হবে।
৩. বাংলা নববর্ষের সকল অনুষ্ঠান বন্ধ থাকবে।
৪. খাদ্যশস্য উৎপাদন, কাটা এবং পরিবহনের সাথে যারা যুক্ত তাদেরকে গন্তব্যে পৌঁছে দেয়ার ব্যবস্থা করতে হবে।
৪. খাবার এবং ঔষধের দোকান খোলা থাকবে।
৫. এখন যারা কাজ করতে পারছে না তাদের ঘরে ঘরে খাবার পৌঁছে দিতে হবে।
৬. ফসল উৎপাদন বৃদ্ধি করতে হবে।একখন্ড জমিও যেন অনাবাদি না থাকে।
৭. কৃষক যাতে ন্যায্য মূল্য পায় তার জন্য ২ লক্ষ মে: টন এর বেশি খাদ্যদ্রব্য ক্রয় করা হবে।
৮. ক্ষতগ্রস্ত কৃষকের মাঝে ১৫০ কোটি টাকা বরাদ্দ থাকবে।
কৃষক, শ্রমিক, কামার, কুমার, তাতী, জেলেসহ সকল শ্রেণি-পেশার মানুষকে সহযোগিতা করতে হবে।
৯. কৃষিখাতে ৫ হাজার কোটি টাকার প্রণোদনা থাকবে। ক্ষুদ্র/মাঝারি শিল্প, ফুল, ফল, পোল্ট্রি, মৎস্য খাতের সাথে যুক্তদের ৫℅ হার সুদে ঋণ দেয়া হবে।
১০. সকলে স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলবেন।
১১. প্রত্যেকে যার যার এলাকা সুরক্ষা করবেন।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •  

আরো সংবাদ




Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Close